আবারো শুরু হয়েছে প্রো-অফার! নামমাত্র মূল্যে ফ্রিল্যান্সিং কোর্স করুন ঘরে বসেই। বিস্তারিত

Pay with:

কিভাবে বিসিএস ভাইভার প্রস্তুতি নিবেন

কিভাবে বিসিএস ভাইভার প্রস্তুতি নিয়েছিলাম


সালমান হাসান
বিবিএ, এমবিএ (ঢা:বি)
৩৩ তম বিসিএস (পুলিশ)
মেধাক্রম : ১১ তম
.
বিসিএস পরীক্ষার তৃতীয় ধাপ কিন্তু খুবই গুরত্বপূর্ণ ধাপ হলো বিসিএস (ভাইভা)। কারণ লিখিত পরীক্ষা কারও একটু খারাপ হয়ে গেলেও ভাইভা পরীক্ষায় তা পুষিয়ে নেয়া সম্ভব।আমি অনেক পন্ডিত সম পরীক্ষার্থী দেখেছি তারা লিখিত পরীক্ষা অত্যন্ত ভালো দেয়া সত্তেও ভাইভা পরীক্ষা খারাপ দেয়ায় নন ক্যাডার পেয়ে বসে আছেন। তারপর পাগলের প্রলাপের মত বলছে বিসিএস পরীক্ষায় এবার ব্যাপক দুর্নীতি হয়েছে।অনেকেই বলে থাকবে যে বিসিএস ভাইভা পরীক্ষায় আসলে পড়ার কিছু নেই।এটা ভাগ্যের ব্যাপার। আমি পুরোপুরি না হলেও আংশিক ভাবে একমত যে Luck প্রতিটি ক্ষেত্রেই সবচেয়ে বড় ফ্যাক্টর। কিন্তু তাই বলে তো আর ভাগ্যের উপর নির্ভর করে বসে থাকা যায়না । পূর্ণ প্রস্তুতি নেবার পর যদি পরীক্ষাতে কিছু কমন নাও পরে আপনার confidence level অনেক বেশি থাকবে যেটি আপনাকে অন্যান্য question answer করার ক্ষেত্রে সাহায্য করবে।

ভাইভার প্রস্তুতির ব্যাপারে আমি কি করেছি এখানে তাই share করছি। আপনারা পড়ে সময় নষ্ট না করলেই ভালো হয়।
.
১) ভাইভা তে কিছু Basic Question থাকে সেগুলো থেকে যেকোনো ভাইভাতেই প্রশ্ন করা হয়ে থাকে। সাধারণত ভাইভার শুরুতে এই Question গুলো করা হয়। এই ধরনের প্রশ্ন গুলো সবাই অবহেলা করে। ভাবে এইগুলোতো পারিই। কিন্তু First impression is the best impression। তাই আমি এই প্রশ্ন গুলোর জন্য বেশ সময় দিয়েছি। যেমন “why foreign affairs is your first choice?”” সবাই তো গদ বাঁধা গাইডের একটা উত্তর দিবে। কিন্তু “” you have to stand out in a crowd”” হতে হবে। আমি যেটা করেছি আমরা তিন বন্ধু “”Why FA is your first choice?”” এর উত্তর বাসাতে সুন্দর করে লিখেছি, এরপর আমরা তিন জন TSC তে বসে তিন জনের উত্তর থেকে ভালো ভালো অংশ মিলিয়ে একটা উত্তর তৈরী করেছি। পরে বড় ভাইদের (সফল) সাথে আলোচনা করেছি উনারা কিভাবে answer করেছিলেন।তারপর আমাদের ওই উত্তর কে আরেকটু ঝালাই করে একটা চমত্কার উত্তর দাড় করেছি। এক্ষেত্রে কঠিন নয় বরং শ্রুতিমধুর শব্দ গুলো চয়ন করেছি। এভাবে Basic questions গুলোর answer সাজিয়ে বাসায় practice করেছি।
.
২) আরো কিছু Basic question এর মধ্যে হলো : নিজ নামের বিশ্লেষণ, নিজ জেলার বিস্তারিত, নিজ শিক্ষালয় সম্পর্কে বিস্তারিত,জন্ম তারিখ,ব্যক্তিগত প্রশ্ন, ভাইভার দিনের বাংলা তারিখ, ভাইভার দিনের সংবাদপত্র,নিজ বিষয়ের সাথে পছন্দনীয় ক্যাডারের সংগ্লিষ্টতা ইত্যাদি।
.
৩) যেহেতু আমার both cadre ছিল তাই নিজ subject সম্পর্কে clear concept নিয়ে গিয়েছিলাম।। কেননা অন্যান্য সাধারণ জানের জ্ঞানের উত্তর আপনি নাই জানতে পারেন কিন্তু আপনার নিজ subject থেকে answer করতে না পারাটা মারাত্মক “”Negative marking হতে পারে।
.

৪) বঙ্গবন্ধু এবং মুক্তিযুদ্ধ নিযে প্রশ্ন আসবেই। অন্তত আমাকে বেশ কয়েকটি প্রশ্ন করা হয়েছিল বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে। আমরা তিন বন্ধু এ সময় মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর (সেগুন বাগিচা), বঙ্গবন্ধুর ধানমন্ডির বাসভবন পরিদর্শন করেছি। এতে যেমন বইয়ের সাথে Practical Knowledge এর মিলন ঘটাতে পেরেছি তেমনি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় আরো বেশি উজ্জীবিত হয়েছি। এই চেতনাও কিন্তু ভাইভা পরীক্ষায় কাজে লেগেছে।
.
৫) You Tube থেকে বিভিন্ন ভিডিও যেমন ICS Viva’র ভিডিও ডাউনলোড করে দেখেছি।এতে BCS Viva’র environment সম্পর্কে একটা Mental Map তৈরী হয়েছে।
.
৬)অনেকেই জিজ্ঞাস করে ২য় ক্যাডার Choice থেকে পড়ব কিনা।আমি মনে করি ২য় ক্যাডার Choice থেকে basic (Common) Information জেনে নেয়া ভালো। আমাকে কিন্তু ২য় ক্যাডার চয়েস থেকে বেশ কিছু basic (Common) প্রশ্ন করা হয়েছিল।
.
৭) BTV News প্রতিদিন দেখেছি। কারণ এতে সরকারের সাফল্য ও কর্মকান্ডের বিস্তারিত জানা যায়। Viva পরীক্ষায় ভালই কাজে দিয়েছে।
.
৮)বিশ্ব ও বাংলাদেশ মানচিত্র মোটামুটি ভালো করে আয়ত্ত করেছিলাম। সংবিধান লিখিত পরীক্ষায় যতটুকু পড়েছিলাম ভাইভাতে যাবার পূর্বে দেখে গিয়েছিলাম।
.
৯)সংবাদ পত্র চিরুনি পড়া দিয়েছিলাম। প্রতিদিন সংবাদ পত্র থেকে যে গুরত্বপূর্ণ ইনফরমেশন পেয়েছিলাম তা লিখে রাখতাম। মাস শেষে একটা নোট তৈরী হয়ে যেত তাতে মাঝেমাঝে চোখ বুলাতাম।
.
১০)বিসিএস এর ভাইভা কেমন হচ্ছে তা সরজমিনে PSC গিয়ে দেখে এসেছি, এতে মানসিক ভাবে কিছুটা Advantage পাওয়া যায়। তবে প্রতিদিন যেয়ে সময় নষ্ট করিনি। কোন বোর্ডে কেমন Question করছে তা খুব সহজে Facebook এর BCS: Our Goal এ পেয়ে গিয়েছি। সেই প্রশ্ন গুলো তিন বন্ধু মিলে Analysis করেছি।
.
১১)””Impression management”” নিয়ে সফল বড় ভাইদের সাথে আলোচনা করেছি। ভাইভা dress,চুলের সাইজ,শার্ট এর কালার নিয়ে বড় ভাইদের সাজেশন নিয়েছি।
,
১২) ভাইভা তে কোন কোন কাগজপত্র লাগবে তা খুবই গুরুত্বের সাথে নিয়েছিলাম বলে আমার viva’র দিন কোনো সমস্যা হয়নি। কিন্তু অনেকের দেখেছি ভাইভার দিন অনেক সমস্যায় পড়তে হয়েছে। তাই এ ব্যাপারে সচেতন থাকাটাই ভালো।

আসলে এতক্ষণ আমি যেটি আলোচনা করলাম সেটা সম্পূর্ণ আমার নিজের প্রস্তুতি। এরকমই প্রস্তুতি নিতে হবে Not Necessary। আপনারা নিজেদের strategy অনুযায়ী Preparation নিন। আর ভইভাতে সকল প্রশ্নের উত্তর পারতেই হবে এমন কোনো বিষয় নয়। আমি নিজেও মাত্র ৭০% প্রশ্নের সঠিক উত্তর দিতে পেরেছিলাম। ভাইভাতে সকলেই কম বেশি Nervous হয়, এ নিয়ে Tension করার কিছু নেই। তবে Nervousness কে কিভাবে কাটানো যায় সেটার চেষ্টা করাটাই শ্রেয়।ভাইভা বোর্ডে নিজেকে সঠিক ও সুন্দর ভাবে present কর সবার প্রতি শুভ কামনা রইলো।
.
বি:দ্র: কোনো প্রকার লবিং ছাড়া যে বিসিএস হয় তার ১০০% গ্যারান্টি আমি দিচ্ছি।

 

   
   

0 responses on "কিভাবে বিসিএস ভাইভার প্রস্তুতি নিবেন"

Leave a Message

Certificate Code

সবশেষ ৫টি রিভিউ

eShikhon Community
top
© eShikhon.com 2015-2022. All Right Reserved