আবারো শুরু হয়েছে প্রো-অফার! নামমাত্র মূল্যে ফ্রিল্যান্সিং কোর্স করুন ঘরে বসেই। বিস্তারিত

Pay with:

প্রথম আলো থেকে সংগৃহীত পার্ট – 29

দেশের বিভিন্ন স্থানে একই কায়দায় একের পর এক খুনের ঘটনার পরও ঘাতকদের ধরতে না পারাকে যখন ভবিতব্য মনে করা হচ্ছিল, তখন মাদারীপুরের সাহসী জনতা অন্তত এক সন্দেহভাজন ব্যক্তিকে ধরে ফেলার অনুসরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।
Just as frustration escalated over the failure to nab the perpetrators of the recent spate of killings, the people of Madaripur deserve kudos for the exemplary action in catching a suspected extremist.

এর আগে গত বছরের মার্চে ওয়াশিকুর রহমানকে হত্যা করে পলায়নরত দুই জঙ্গিকে ঘটনাস্থলেই পাকড়াও করতে সক্ষম হয়েছিল তৃতীয় লিঙ্গের দুই ব্যক্তি।

In March last year it was two transgender members of the public who managed to catch two killers of Oyasiqur Rahman while they were attempting to flee.
একই সঙ্গে গত বছরে শুদ্ধস্বরের প্রকাশক আহমেদ রশীদ ও তাঁর দুই সহযোগীর ওপর হামলাকারী হিসেবে পুলিশ যাদের শনাক্ত করে পুরস্কার ঘোষণা করেছিল, তাদের একজন গ্রেপ্তার হওয়া কিছুটা হলেও আশা জাগায়।

It was somewhat reassuring that the police have managed to catch one of the suspects in last year’s attack on publisher Ahmed Rashid and his two colleagues.
যদিও আহমেদ রশীদ নিজেই তাঁকে হামলায় গ্রেপ্তার করা ব্যক্তির সম্পৃক্ততা সম্পর্কে সংশয়গ্রস্ত।
However, Ahmed Rashid has expressed his doubts as to whether the arrested person is actually the one who attacked him.

লক্ষণীয় যে জঙ্গি বা উগ্রপন্থীদের লাগাতার হামলা ও তাতে হতাহত ব্যক্তিদের সংখ্যা ক্রমবর্ধমান হারে বৃদ্ধি পেলেও এখন পর্যন্ত আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলো খুব কম ক্ষেত্রেই প্রকৃত অপরাধীদের পাকড়াও করতে পেরেছে।
While the number of killings and attacks by militants or extremists steadily increase, the law enforcement agencies have hardly been able to actually arrest the actual criminals.
আমরা জনগণের প্রিতবাদ ও প্রতিরোধের শক্তিকে অভিবাদন জানাই।
We salute the strength of public protest and resistance.

সহিংসতা সৃষ্টিকারীরা যে জনবিচ্ছিন্ন, সেই সত্য যেন একজন আক্রান্ত ধর্মীয় সংখ্যালঘুর নিরাপত্তায় সম্মিলিতভাবে ঝাঁপিয়ে পড়ার ঘটনায় প্রমাণিত হলো।
It proves that the militants are isolated from the people.

রিপন চক্রবর্তী হত্যাচেষ্টার উদ্দেশ্য অনুদ্ঘাটিত।
The motive of Ripon Chakroborti killing attempt remains undiscover.

কিন্তু এ ঘটনায় জড়িত অন্যদেরও দ্রুত গ্রেপ্তার করার চ্যালেঞ্জ এখন পুলিশের সামনে।
But it is now up to the police to arrest the remaining criminals.

তাদের উপলব্ধি করতে হবে যে জঙ্গিদের বিরুদ্ধে তারা কার্যকর ব্যবস্থা নিতে ব্যর্থ হয়েছে।
They have to realize that they that failed to take effective measures against the militants.
মাদারীপুর মডেল থানার মাত্র ১০০ মিটার দূরের একটি বাসায় জঙ্গিরা হামলা চালাতে কিন্তু কুণ্ঠিত হয়নি।

These militants had no qualms in attacking a house just 100 metres away from the Madaripur model police station.
সদ্য সমাপ্ত সাঁড়াশি অভিযানে ‘গ্রেপ্তার-বাণিজ্যের’ যে চিত্র কোথাও কোথাও মূর্ত হয়েছে, তা দমনে পুলিশ কর্তৃপক্ষকে আন্তরিক হতে হবে।

In the recent combing operation against militants, there were allegations of police running an ‘arrest trade’.

পুলিশের বিরুদ্ধে আস্থার ঘাটতি হলে জনগণের পক্ষে এ ধরনের অতন্দ্র প্রহরীর ভূমিকা পালন কঠিন হয়ে পড়ে।

The police authorities must make sincerest efforts to rectify this image in order to regain public trust.
অথচ মাথাচাড়া দিয়ে ওঠা জঙ্গিবাদ দমনে সক্রিয় জনভূমিকার বিকল্প নেই।
Without the cooperation of the public, it will not be possible to destroy the rising militancy.

   
   

0 responses on "প্রথম আলো থেকে সংগৃহীত পার্ট - 29"

Leave a Message

Certificate Code

সবশেষ ৫টি রিভিউ

eShikhon Community
top
© eShikhon.com 2015-2022. All Right Reserved